এক দশকে সবচেয়ে খারাপ বন্যায় পানির নিচে বাংলাদেশের এক তৃতীয়াংশ

Created August 15, 2020

Last Updated : August 15, 2020

In 2020, floods hit 5.7 million people in Bangladesh. Emergency support needed. Donate Now!

*Summery:

The surge in flood waters have inundated 21 districts in Bangladesh particularly in the north affecting over 2 million people. Usually the difficulty of floods is duration. i.e. the consequent scarcity of food / supplies; or unpredictability of time which leads to agricultural losses. This time it's the sheer magnitude. Friendship is providing rescue, shelter, water, sanitation and emergency medical support from the relief contingency budget and we urgently need to replenish the same to continue.

*Challenge:

The floods this year are at the extreme, affecting over 2 million people. Their lives and livelihoods are at stake, with people and their livestock in mortal threat of drowning, hunger, thirst, exposure, and lack of shelter, accessibility and sanitation. 42 Friendship schools have been closed temporarily. Several of our schools, legal booths, clinics, weaving centres and offices have been submerged. Measures need to be taken immediately.

*Long-Term Impact:

10 years ago, food was the first need. Today with interventions from various organisations where Friendship played a large role especially in the riverine islands, people have learned to save money and dry food stocks through our community savings model. Friendship is providing support from the relief contingency budget and we urgently need supplies of medicine, water, sanitation, volunteer support etc. to continue. If the flood lasts, food and rehabilitation support will surely be needed.

https://www.youtube.com/watch?v=F8_TMoBz7jc

Campaign Details

***বাংলাদেশে বন্যায় ৫.7 মিলিয়নেরও বেশি মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে***

গ্রাম, বাড়িঘর ডুবে যাওয়ায় দেড় মিলিয়নেরও বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে

এক দশকের বেশ কয়েকটি ভারী বৃষ্টির পর বাংলাদেশের এক তৃতীয়াংশ জলের তলে ডুবেছে বলে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কতা কেন্দ্রের (এফএফডব্লিউসি) কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

বাংলাদেশের এফএফডব্লিউসি প্রধান আরিফুজ্জামান ভূইয়া এএফপিকে বলেছেন, "এটি এক দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যা হতে চলেছে।"

তিনি বলেছিলেন যে বন্যাপ্রবণ বাংলাদেশের প্রায় এক তৃতীয়াংশ জলের তলদেশে ছিল এবং কমপক্ষে দেড় মিলিয়ন মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে, গ্রামে ঘরবাড়ি এবং রাস্তা প্লাবিত হয়েছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রক সতর্ক করেছে যে ২৩ টি জেলা বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ হবে।

এফএফডব্লিউসি’র নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া বলেছেন, “উজানের বৃষ্টিপাতের কারণে জলের স্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে যা উক্ত জেলাগুলিতে নিম্ন স্তরের জমি আরও ডুবে যাবে।”

কুড়িগ্রামে ব্রহ্মপুত্র ফুলে যেতে থাকে এবং উপজেলায় দুই লক্ষ লোকের বিড়বিড় করা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে।

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ব্রহ্মপুত্র চিলমারী পয়েন্টে বিপদসীমার ১০১০ সেমি উপরে এবং নুনখাওয়া পয়েন্টে ৯৯ সেমি উপরে ছিল।

বুধবার সকালে ধরলার জলের স্তরটি কুড়িগ্রাম ব্রিজ পয়েন্টে বিপদজনক চিহ্নের চেয়ে 90 সেন্টিমিটার উপরে উঠে গেছে।

‘বন্যা আরও খারাপ হতে পারে’

বুধবার সকাল ৯ টায় এফএফডব্লিউসি জানিয়েছে, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, বগুড়া, জামালপুর, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল, নাটোর, নওগাঁ, মুন্সীগঞ্জ, মানিকগঞ্জ ফরিদপুর, মাদারীপুর, রাজবাড়ী, শরীয়তপুর এবং inাকার বন্যার পরিস্থিতি আগামী 24 ঘন্টা আরও অবনতি করবে।

পদ্মা, গঙ্গা, যমুনা ও ব্রহ্মপুত্রসহ প্রধান নদীগুলির জলের স্তর বৃদ্ধির কারণে উত্তর ও মধ্য ১৫ টি জেলায় বন্যার পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে বলে এফএফডাব্লুসি জানিয়েছে।

এদিকে সিলেট ও ​​সুনামগঞ্জে বন্যার পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে।

এ ছাড়া জেলার আরও ১ rivers টি নদী উপচে পড়েছে এবং ৫ 56 টি ইউনিয়নকে পানির নিচে রাখছে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের মতে, ব্রহ্মপুত্র ব্রহ্মপুত্রের আশেপাশের গ্রামগুলিতে এবং নিমজ্জিত শস্যভূমিতে প্রবেশ করেছিল।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের (ডিএই) সূত্র জানায়, বন্যায় হাজার হাজার হেক্টর জমির ফসল জলে ডুবে গেছে।

জেলার ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আবদুর রহিমের মতে, সিরাজগঞ্জে প্রায় ১5৫,০০০ মানুষ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছিল এবং তাদের বেশিরভাগ উচ্চস্থানে বা বেড়িবাঁধে সরিয়ে নেওয়া শুরু করেছিল।

টাঙ্গাইলে, বুধবার সমস্ত নদী বিপদজনক চিহ্নের উপরে প্রবাহিত হয়েছিল, হাজার হাজার মেরোনেড রেখেছিল।

টাঙ্গাইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের (ডাব্লুডিবি) নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম জানিয়েছেন, বুধবার সকাল ৯ টার দিকে ধলেশ্বরী, যমুনা ও ঝিনাই বিপদসীমার উপরে যথাক্রমে ১০০ সেমি, 68 68 সেমি এবং 64৪ সেমি প্রবাহিত হয়েছে।

জেলার ত্রাণ ও পুনর্বাসন অফিস সূত্রে জানা গেছে, সদর, নগরপুর, দেলদুয়ার, ভূয়াপুর, কালিহাতী ও গোপালপুর উপজেলার ২৫ টি ইউনিয়নের ১৪১ টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে এবং হাজার হাজার মানুষ এই অঞ্চলে বিস্মিত হয়েছেন।

পাঁচ জেলায় ডুবে ৮ জন

বুধবার জামালপুর ও গাইবান্ধায় কমপক্ষে আটজন মানুষ ডুবে গেছে। মঙ্গলবার কুড়িগ্রাম, মৌলভীবাজার ও নরসিংদীতে আরও ছয়জন ডুবে গেছে।

নিহতরা হলেন জামালপুরের কোটা মন্ডল (৩৫); গাইবান্ধায় দেড় বছরের শিশু হাসানাত মোল্লা; রেশমি বেগম (,) এবং মৌলভীবাজারের মারিয়া (৫); আমানত হোসেন (৮) ও নরসিংদীর মাহফুজ (,); মিমি, ৮, এবং কুড়িগ্রামের দেড় বছর বয়সী লামিয়া খাতুন।

স্থানীয় পুলিশ ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা নিহতের খবর নিশ্চিত করেছেন।

কোটা মন্ডল, মিমি এবং লামিয়া প্লাবিত জলে মারা গিয়েছিল এবং বাকী লোকেরা দুর্ঘটনাক্রমে তাদের বাড়ির কাছে জলাশয়ে পড়ে যাওয়ার পরে মারা যায়।

মেহেদী আল আমিন, আরিফুল ইসলাম, কুড়িগ্রাম, আমিনুল ইসলাম রানা, সিরাজগঞ্জ, আবদুল্লাহ আল নুমান, টাঙ্গাইল, তাজুল ইসলাম, গাইবান্ধা, সাইফুল ইসলাম, মৌলভীবাজার, আসাদুজ্জামান রিপন, নরসিংদী এই প্রতিবেদনে অবদান রেখেছেন

Note Credit: https://www.dhakatribune.com/bangladesh/2020/07/15/one-third-of-bangladesh-underwater-in-worst-flood-in-decade

Report Fraud



Yes No

Ahsan Habib

Raised

Tk0

Goal

Tk100M

0

Donor

290

Views

0%

Raised






Ssl seal 1